মঠবাড়িয়ায় তিশান নামক যুবকের হুমকির মুখে অসহায় নাজমা নামের এক নারী

স্টাফ রিপোর্টার ঃ পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় তিশান নামের এক যুবকের হুমকির মুখে নাজমা নামের অসহায় এক নারী।এ ব্যাপারে নাজমা বেগম বাদী হয়ে মঠবাড়িয়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগ সুত্রে জানাযায় নাজমা বেগম তার একমাত্র মেয়ে মরিয়ম আক্তার সারমিন কে নিয়ে খাগড়াছড়ি বসবাস করতে ছিলো। এদিকে পূর্ব পরিচয় সূত্রে মঠবাড়িয়া উপজেলার গুলিশাখালী ইউনিয়নের আসাদুল আলম লাবুর ছেলে রিফাদুল আলম তিশান খাগড়াছড়ি গিয়ে বিভিন্ন সময়ে কলা কৌশলে ভুল বুঝিয়ে ফুসলিয়ে মরিয়ম আক্তার সারমিন কে দশ লক্ষ টাকা দেন মোহর ধার্য করে রেজিস্ট্রি কাবিনের মাধ্যমে বিবাহ করে। বিবাহের পরে জোর পূর্বক সারমিন কে নিয়ে মঠবাড়িয়া বসবাস করার কথা বলে চলে আসে। তখন নাজমা বেগম স্হানীয় খাগড়াছড়ি থানায় অভিযোগ দায়ের করিলে অত্র থানার অফিসার ইনচার্জ তিশানের সাথে কথা বললে শাশুড়ী নাজমা বেগমকে ও খাগড়াছড়ির বাসা ছেড়ে সকল মালামাল নিয়ে মঠবাড়িয়া আসার কথা বলে তিশান। এমন কি মালের গাড়ি ভাড়া টাকা দেওয়ার কথা স্বীকার করে তিশান। তিশানের কথা মতো নাজমা আক্তার সকল মালামাল নিয়ে মঠবাড়িয়া আসার পরে আত্মগোপনে গিয়ে তিশান বিভিন্ন সময়ে ফোনের মাধ্যমে হুমকি দিয়ে আসছে তার শাশুড়ী কে। এ দিকে নাজমা বেগমের মঠবাড়িযায় কোনো বাসাবাড়ি না থাকায় কিছু মালামাল নাজমা বেগম বিক্রি করে গাড়ি ভাড়া দিলেও বাকি মালামাল কে বা কাহারা লুটপাট করে নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে তিশানের সাথে যোগাযোগ করে না পেলে ও সরজমিনে গিয়ে জানাযায় তিশানের বাড়িতে তার প্রথম স্ত্রী ও সন্তান রয়েছে। অন্যদিকে নাজমা বেগম তার মেয়ের সন্ধান না পেয়ে সব কিছু হাড়িয়ে পাগলের মতো মেয়ের সন্ধানে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছে। এ ব্যাপারে নজমা বেগম প্রশাসনের কাছে তার মেয়েকে ফিরে পাওয়ার জোর দাবী জানিয়েছে।

0Shares

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।